ইরানের পারমাণবিক স্থাপনায় স্যাবোটাজ!

31

নাতাঞ্জ পারমাণবিক স্থাপনায় ‘স্যাবোটাজের অভিযোগ করেছেন ইরানের পারমাণবিক শীর্ষ কর্মকর্তা আলী আকবার সালেহি। তিনি এটাকে সন্ত্রাসী কর্মকা- বলে অভিহিত করেছেন। তবে এর জন্য সরাসরি কাউকে দায়ী করেননি। আকারে ইঙ্গিতে ইসরাইলের দিকে ইঙ্গিত করেছেন। ইসরাইলি মিডিয়া গোয়েন্দা সূত্রকে উদ্ধৃত করে বলেছে, ইরানের পারমাণবিক স্থাপনায় এটা ছিল ইসরাইলের সাইবার হামলা। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। উল্লেখ্য, শনিবার ইরানের শীর্ষ স্থানীয় এই পারমাণবিক স্থাপনায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ শুরুর উদ্বোধন করেন প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। এরপর সেখানে বৈদ্যুতিক ‘ইনসিডেন্ট’ ঘটে বলে জানানো হয়।
বলা হয়, এতে সেখানে কোনো বিস্ফোরণ, বিকিরণ বা অগ্নিকা-ের সূত্রপাত হয়নি। তবে স্থাপনায় বিদ্যুত সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এতে হতাহত হননি কেউ। এ বিষয়ে ইসরাইলের পক্ষ থেকে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। কয়েক দিন হলো ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে তারা।
২০১৫ সালে সম্পাদিত ঐতিহাসিক পারমাণবিক চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে ২০১৮ সালে প্রত্যাহার করে নেন দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী এই চুক্তিকে পুনরুজ্জীবিত করার কূটনৈতিক কাজ শুরু করেছেন। অমনি ইরানের পারমাণবিক ওই স্থাপনায় সর্বশেষ ওই ঘটনা ঘটলো। ফলে বিষয়টিকে স্যাবোটাজ হিসেবে দেখা হচ্ছে ইরান ও বিভিন্ন মহল থেকে। শনিবার নাতাঞ্জ পারমাণবিক স্থাপনায় ইউরেনিয়াম সেন্ট্রিফিউজ তৈরির কাজ উদ্বোধন করেন প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। এই সেন্ট্রিফিউজ ব্যবহার করে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করা হয়। সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি এবং পারমাণবিক চুল্লিতে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যায়।