স্বৈরশাসকরা গণতন্ত্রের বিপক্ষে বাজি ধরছে, প্রমাণ করতে হবে গণতন্ত্র কার্যকর

13

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার ১০০ দিনের মাথায় বুধবার কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে প্রথম ভাষণ দেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। বাইডেন তার ৭০ মিনিটের ভাষণের উপসংহারে বলেন, গণতন্ত্রকে পরীক্ষা করা হচ্ছে৷ সরকার যে এখনও মানুষের পক্ষে কাজ করতে পারে তা দেখিয়ে দেয়ার জন্য তিনি আমেরিকানদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রশ্ন করেন, “গণতন্ত্র কি জনগণের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চাহিদাগুলো পূরণ করতে পারে? গণতন্ত্র কি মিথ্যা, ক্রোধ, ঘৃণা এবং ভয়কে জয় করতে পারে যা আমাদের বিভাজিত করে দিয়েছে? ”

বাইডেন বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধীরা – বিশ্বের স্বৈরশাসকরা বাজি ধরে বলছে গণতন্ত্র তা করতে পারে না। তারা বিশ্বাস করে যে আমরা ক্রোধে আর ক্ষোভে অনেক বেশি বিভক্ত। এ জাতীয় সমালোচকরা জানুয়ারির ৬ তারিখ ক্যাপিটলে হামলাকে ‘যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রের অস্তমিত হওয়ার প্রমাণ’ হিসেবে দেখতে পেয়েছিল।’

তারা ভুল করছে মন্তব্য করে বাইডেন বলেন, ‘তাদের এই ভুল আমাদের প্রমাণ করে দেখাতে হবে। আমাদের গণতন্ত্র যে এখনও কার্যকর রয়েছে তা প্রমাণ করতে হবে। আমাদের সরকার এখনও কাজ করে – এবং তা জনগণের পক্ষে।’

বাইডেনের এ ভাষণটি মূলত দেশের অভ্যন্তরীন নীতি নিয়ে হলেও এর একটি বড় অংশ জুড়েই ছিল চীনের প্রসঙ্গ। বাইডেন চীনের হুমকিকে সামনে রেখে ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের শক্তিশালী সামরিক উপস্থিতি বজায় রাখাসহ প্রযুক্তিগত উন্নয়ন এবং বাণিজ্য আরও সম্প্রসারণের অঙ্গীকার করেছেন। মানবাধিকার, বাণিজ্যে অসমতার মতো বিভিন্ন ইস্যুতে চীনকে চাপে রাখার জন্য বাইডেন ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান দুই শিবিরকেই ব্যাপক পরিসরে বেশকিছু আইন পাসের আহ্বান জানান।

বাইডেন বলেন, ‘মানবাধিকার, মানুষের মৌলিক স্বাধীনতা এবং যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদের প্রতি দেয়া প্রতিশ্রুতি থেকে যুক্তরাষ্ট্র সরে আসবে না।’।