প্রথম বারের মত আমেরিকায় করোনা রোগীর ফুসফুস প্রতিস্থাপন!

60

অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে ২০ বছর বয়সী এক করোনা রোগীর ফুসফুস।শিকাগোর নর্থওয়েস্টার্ন মেডিসিন হাসপাতাল জানিয়েছে, করোনার কারণে ওই রোগীর ফুসফুস ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বেশ কিছুদিন তাকে ভেন্টিলেশনে রেখে কৃত্রিমভাবে শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কিন্তু এক পর্যায়ে তার শরীরে অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করা বন্ধ হলে ফুসফুসে ইনফেকশন দেখা যায়। রোগীকে বাচানোর তাগিদে নিরুপায় হয়ে শেষপর্যন্ত ফুসফুস প্রতিস্থাপনেরই সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকরা। নর্থ ওয়েস্টার্নের ফুসফুস প্রতিস্থাপন প্রোগ্রামের সার্জিক্যাল ডিরেক্টর অঙ্কিত ভারতের নেতৃত্বে ওই অস্ত্রোপচার করা হয়।তিনি বলেন, ‘এটি আমার করা সবচেয়ে কঠিন অস্ত্রোপচারের একটি। এটি সত্যিই অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং ছিল।’নতুন করোনাভাইরাস সাধারণত শ্বাসযন্ত্রকে আক্রমণ করে। পাশাপাশি ভাইরাসটি কিডনি, হৃৎপিণ্ড, রক্তনালী এবং স্নায়ুতন্ত্রেরও ক্ষতি করতে পারে বলে জানা গেছে। এর আগে, গত ২৬ মে অস্ট্রিয়ার একদল চিকিৎসক প্রথমবারের মতো ৪৫ বছর বয়সী এক করোনা রোগীর জীবন বাঁচাতে ফুসফুসের অস্ত্রোপচার করেন। অঙ্কিত ভারত জানান, যুক্তরাষ্ট্রে এর আগে কখনো কোভিড রোগীর সফল অস্ত্রোপচার হয়েছে কী না, তা তিনি নিশ্চিত নন। বিশ্বে তার দলই প্রথম এই ধরনের অস্ত্রোপচারে সাফল্য পেয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি। সিএনএনকে তিনি বলেন, ‘আমরাই প্রথম কোভিড-১৯ রোগীর ফুসফুস সফলভাবে প্রতিস্থাপন করেছি। অন্যান্য ট্রান্সপ্ল্যান্ট সেন্টারগুলোকে আমরা জানাতে চাই যে, এই ধরনের রোগীদের অস্ত্রোপচার কৌশলগতভাবে চ্যালেঞ্জের হলেও এটি নিরাপদে করা সম্ভব। এটি করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীকে বাঁচানোর সর্বশেষ উপায় যারা মারাত্মক ভাবে অসুস্থ হয়ে মৃত্যুপথ যাত্রী। এবং এটি প্রচুর ব্যয়বহুলও বটে।