দুই কোরিয়ার সংযোগকারী অফিস উড়িয়ে দিলেন কিম জং-উন

66

দুই কোরিয়ার সংযোগ রক্ষাকারী সীমান্তবর্তী অফিস উড়িয়ে দিল কিম জং-উনের সেনাবাহিনী৷ সীমান্তের ডিমিলিটারাইজড অঞ্চলে সেনা পাঠানোর হুমকি দেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই আজ মঙ্গলবার দক্ষিণের সঙ্গে যৌথ লিয়াজোঁ অফিস উড়িয়ে দেয় উত্তর কোরিয়া।

সংবাদমাধ্যমকে পাঠানো মাত্র এক লাইনের বিবৃতিতে দক্ষিণ কোরিয়ার সংযোগকারী মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ‘স্থানীয় সময় দুপুর ২.৪৯ মিনিটে এদিন কায়েসং লিয়াজোঁ অফিস উড়িয়ে দিয়েছে উত্তর কোরিয়া৷’

দক্ষিণ কোরিয়ার সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, আজ প্রচণ্ড জোরে বিস্ফোরণের শব্দের সঙ্গে সঙ্গেই ধোঁয়ায় ভরে যায় গোটা ‘কায়সং ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক’ এলাকা৷ তারপরই জানা যায়, কিমের সেনাবাহিনী লিয়াজোঁ অফিসটি উড়িয়ে দিয়েছে৷

বিবিসি’র প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৮ সালে দক্ষিণ ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধি করার জন্য উত্তর কোরিয়ার সীমানায় একটি যৌথ লিয়াজোঁ অফিস স্থাপন করা হয়। করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে এই কার্যালয়টি খালি পড়ে ছিল।

advertisement
এর আগে দুই কোরিয়ার সীমান্তে যে ‘ডিমিলিটারাইজড জোন’ রয়েছে সেখানে সেনা পাঠানোর হুমকি দিয়েছিল উত্তর কোরিয়া। দক্ষিণ কোরিয়াতে বসবাসকারী উত্তর কোরিয়ার স্বদেশত্যাগী দলগুলো যেসব প্রচারণামূলক কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে তার জবাবে এই হুমকি।

স্বদেশত্যাগী দলগুলো বেলুন ও ড্রোন ব্যবহার করে প্রায়শই উত্তর কোরিয়া বিরোধী লিফলেট পাঠায় দেশটিতে। সেটিকে কেন্দ্র করে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চলছে।

শনিবার উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উনের বোন কিম ইয়ো-জং বলেছেন, তিনি ইতিমধ্যেই সেনাবাহিনী প্রস্তুতি নিতে বলেছেন।

হুমকির জবাবে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী আজই বলেছেন, তারা মার্কিন সেনাবাহিনীর সঙ্গে একত্রে উত্তর কোরিয়ার সেনাবাহিনীর গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছে।

সম্প্রতি দক্ষিণ কোরিয়ায় সঙ্গে সমস্ত কৃটনৈতিক সম্পর্ক ঘুচিয়ে দিয়েছেন কিম জং-উন৷

চলতি মাসের শুরু থেকেই সম্পর্কের অবনতি ঘটে৷ সীমান্ত পেরিয়ে উত্তর কোরিয়ার শাসক বিরোধী লিফলেট বিলি ও পিয়ংইয়ংয়ের সমালোচনা করে বেলুন বার্তা পাঠানো নিয়ে দুই দেশের মধ্যে বিবাদ শুরু হয় নতুন করে৷