ভিসি নিয়োগ ও সাম্প্রদায়িকতার ভিন্নরূপ!

290

সম্প্রতি এক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি নিয়োগ নিয়ে সোশাল মিডিয়াতে তর্ক, বিতর্ক ও সাম্প্রদায়িকতার ভিন্নরূপ দেখলাম আমরা! আমরা আমাদের শিক্ষকদের অর্থাৎ মানুষ গড়ার কারিগরদের ভাগ করে ফেলতে চাই এক উগ্র-অন্ধ ধর্ম পরিচয়ে। সংকীর্ণতা আর সাম্প্রদায়িকতার এক চূড়ান্ত পর্যায়ে চলে এসেছি আমরা। দেখলাম এই সাম্প্রদায়িকতার কারণে দুটি ভিন্ন ধর্মাবলম্বী মানুষের মধ্যে কীভাবে ঘৃণা ছড়ানো হচ্ছে। ভার্চুয়াল জগত বিশেষ করে ফেসবুকে সাম্প্রদায়িক আক্রমণের প্রকাশ দেখে অনেকে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।

সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে আমাদের উপমহাদেশে বহু আলোচনা-সমালোচনা, তর্ক-বিতর্ক, এমনকি যুদ্ধ-বিগ্রহ হয়েছে, এখনো হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মত প্রকাশের নামে যেভাবে একজন শিক্ষককে ধর্ম পরিচয় নিয়ে আক্রমণ করা হল তা সমাজের নীতিনির্ধারণী সকলকে ভাবিয়ে তোলার কথা। বিজ্ঞান চর্চা ভুলে কিভাবে ধর্মান্ধ সাম্প্রদায়িক প্রজন্ম বেড়ে উঠছে তা নিশ্চয়ই ভাবিয়ে তুলবে আমাদের। বুয়েটের মত একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকে নিয়ে এমন আচরণে আমরা ভীষণ লজ্জিত। শুধু যে মানসিক সাম্প্রদায়িকতা রয়ে গেছে তা নয়, সাম্প্রদায়িক নির্যাতনও ঘটছে দেশের নানা প্রান্তে।

আমরা ভুলে যাইনি নিশ্চয়ই, ২০০১ সালের সাধারণ নির্বাচনের পর সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর দেশের নানা প্রান্তে বহু স্থানে নানা রকম নিপীড়নের খবর। হত্যা, সম্পত্তি দখল, নারী ধর্ষণ সব কিছুই ঘটেছে এই বাংলাদেশে। দেখেছি ধর্মীয় সংখ্যালঘু যেমন হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, আহমদিয়া, কিংবা জাতিগত সংখ্যালঘু যেমন চাকমা, মারমা, ত্রিপুরা, গারো, সাঁওতাল, হাজংসহ বিভিন্ন আদিবাসী সম্প্রদায়ের জমিজমা দখল ও শতশত নির্যাতনের ঘটনা।
বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক রাজনীতির উত্থান দেখে বহুমুখী লেখক হুমায়ুন আজাদ আশির দশকে খেদোক্তি করেছিলেন এই বলে যে- আমরা ‘প্রতিক্রিয়াশীলতার দীর্ঘ ছায়ার নিচে জীবন অতিবাহন করছি; আর বর্তমান বাংলাদেশ দেখে প্রতীতি জন্মাচ্ছে। প্রতিক্রিয়াশীলতার ধারালো চাপাতির নিচে আমরা এখন জীবনোপায় খুঁজে বেড়াচ্ছি। হুমায়ুন আজাদ নিজেও স্বাধীনতাবিরোধী উগ্র অপশক্তির চাপাতির কোপে মৃত্যুবরণ করেছিলেন।

বেশিদিন আগের কথা নয় বিগত এক দশকে দেখেছি কীভাবে সাম্প্রদায়িকতার উস্কানিতে ২০১২ সালে কক্সবাজারের রামুতে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের উপর হামলা চালানো হয়েছে। ২০১৩ সালের মে মাসে জামায়াত-হেফাজতে ধর্মান্ধতার উস্কানিতে মতিঝিলে হয়েছে তাণ্ডব। ২০১৪ সালে জাতীয় নির্বাচনের আগে ও পরে বিএনপি-জামাত চক্র কীভাবে সাম্প্রদায়িক ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর নির্মম আক্রমণ, সংখ্যালঘু মেয়েদের উপর নির্যাতন করেছিল। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যশোরের মালোপাড়া এবং ঠাকুরগাঁওয়ে সংখ্যালঘু পল্লীতে তাণ্ডব দেখতে হয়েছে। ২০১৬ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর, ২০১৭ সালে রংপুরের গঙ্গাচড়ার ঠাকুরপাড়ায় সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ঘটানো হয়েছে।

মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতাকারী এবং গণহত্যার সাথে জড়িত মানবতাবিরোধী ও যুদ্ধপরাধীদের বিচার কার্যক্রমকে বন্ধ করতে বিচার শুরুর পরপরই দেশের বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়, ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর চালানো হয় নির্যাতন। কুখ্যাত খুনি সাঈদীকে চাঁদে দেখা গিয়েছে এই মর্মে গুজব ছড়িয় ধর্মান্ধ গোষ্ঠীকে উস্কানি দিয়ে জামায়াত-শিবির শান্তি শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যসহ হত্যা করে সাধারণ মানুষকে। জনগনের কোটি কোটি টাকার সম্পদ বিনষ্ট করা হয় সাম্প্রদায়িক উস্কানি দেয়ার মাধ্যমে।

বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদী রাষ্ট্রে পরিনত করতে দেখেছি, ধর্মীয় উন্মাদনায় ২০১৬ সালে গুলশানের হোলি আর্টিজানে নির্মম হত্যাকাণ্ড, কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় দেশের বৃহত্তম ঈদ জামাতে, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের প্রগতিশীল লেখক, প্রকাশক, সাংবাদিক, গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীদের উপর আক্রমণ হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য-সহ ধর্মীয় সংখ্যালঘু এবং ধর্ম যাজকদের উপর আক্রমণ ও হত্যাকাণ্ড দেখতে হয়েছে। কিন্তু এই সব অপরাধী ও তাদের পৃষ্ঠপোষকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনতে বারবার ব্যর্থ হয়েছে রাষ্ট্র। আজ এইসব সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে রাজনৈতিক দলগুলো। তাদের প্রতিহত করার কোন কর্মসূচি তরুণ প্রজন্মকে আলোড়িত করছে না তা ক্রমশ স্পষ্ট হয়ে উঠছে। ভোগ- উপভোগে ব্যস্ত রেখে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার চেতনা থেকে দূরে রাখা হচ্ছে নানা আয়োজনে। শতশত সাম্প্রদায়িক চিন্তার মানুষকে পদ পদবী দিয়ে প্রগতিশীল রাজনৈতিক পরিচয় দেয়া হচ্ছে।

স্বাধীনতার পরপর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন, “আমরা গণতন্ত্র চাই, কিন্তু উশৃঙ্খলা চাই না, কারও বিরুদ্ধে ঘৃণা সৃষ্টি করতেও চাই না। অথচ কোনো কাগজে লেখা হয়েছে মুসলমানকে রক্ষা করার জন্য সংঘবদ্ধ হও। যে সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে আমার দেশের মানুষ রক্ত দিয়েছে, এখানে বসে কেউ যদি তার বীজ বপন করতে চায় তাহলে তা কি আপনারা সহ্য করবেন?” লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত ১৯৭২ সালের সংবিধানে সব ধরণের সাম্প্রদায়িকতা, রাষ্ট্র কর্তৃক কোনো ধর্মকে রাজনৈতিক মর্যাদা দান, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ধর্মের অপব্যবহার, ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্য ও নির্যাতন রুখে দেবার অঙ্গীকার করা হয়। ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ করা হয় এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অন্য ধর্মের শিক্ষা গ্রহণে কাউকে বাধ্য করা যাবে না বলে পরিষ্কারভাবে উল্লেখ করা হয়।

কিন্তু ১৯৭৫ সালে জাতির পিতার নির্মম হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে আমাদের অসাম্প্রদায়িক চেতনা ধূলিসাৎ করে মুক্তিযুদ্ধকে, বাংলাদেশের স্বাধীনতার অর্জনকে বিনষ্ট করার বিশাল ষড়যন্ত্রের মধ্যে দিয়ে সাম্প্রদায়িকতার বীজ বপন কর হয়েছে। সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে সংবিধান থেকে ধর্মনিরপেক্ষতার নীতিকে মুছে ফেলা হয়। ২৫ (২) অনুচ্ছেদের মাধ্যমে ইসলামিক দেশগুলোর সাথে ভ্রাতৃত্ব ও সৌহার্দ্য বৃদ্ধির অঙ্গীকার করা হয়। অনুচ্ছেদে ৩৮, যার দ্বারা ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলোকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিলো তা মুছে ফেলা হয় সংবিধান থেকে।

আমরা দেখেছি কীভাবে বাঙালি জাতীয়তাবাদকে মুছে ফেলে বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের মধ্য দিয়ে কীভাবে স্বাধীনতা বিরোধী নিষিদ্ধ সংগঠন জামায়াতে ইসলামী-সহ প্রায় ৪০টি ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল বাংলাদেশের মূল ধারার রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত করেছিল জিয়াউর রহমান। বাঙালির মুক্তির স্লোগান ‘জয় বাংলা’ কে পরিবর্তন করে ‘বাংলাদেশ জিন্দাবাদ’ স্লোগানের সূচনা করা হয়েছিল। তারপর থেকে বাংলাদেশ উল্টোপথে, উল্টো রথে। হত্যা করা হয় বাঙালির মুক্তির স্বপ্ন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। স্বাধীনতা বিরোধীরা চলে আসে ক্ষমতার কেন্দ্রে। জাতির স্বাধীনতা সংগ্রাম মুক্তিযুদ্ধ তথা স্বাধীন বাংলাদেশকে করা হয় ক্ষত-বিক্ষত। জিয়াউর রহমান ক্ষমতাসীন হবার পর ১৯৮১ সালে জামায়াতে ইসলামীর নেতা গোলাম আজম পাকিস্তানি পাসপোর্ট নিয়ে বাংলাদেশে আসে। এরপর থেকেই অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশকে কীভাবে সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিণত করা যায় তার নানা ধরনের তৎপরতা দেখেছে বাংলাদেশ। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি করে তৈরি করা হয়েছিল এক অন্ধ প্রতিক্রিয়াশীল প্রজন্ম, যা এখনো চলমান বিভিন্ন ধারায়।

আজ স্বাধীনতার ৫০ বছরকে স্পর্শ করা কোন বাংলাদেশ গড়ে তুলছি আমরা? অসাম্প্রদায়িক মানবিক বাংলাদেশের স্বপ্ন কি অনেক দূরে সরে যাচ্ছে ? দীর্ঘসময় ধারাবাহিকভাবে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি দেশ পরিচালনার দায়িত্বে তারপরও যদি সংখ্যালঘুরা নিরাপদ বোধ না করে। নীরবে দেশত্যাগ দেশ ত্যাগ করতে বাধ্য হয়, মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়, সম্পদ হারানোর ভয় থাকে। তাহলে কোন বাংলাদেশ বিনির্মাণ করছি আমরা?

আজ রাষ্ট্রের বৈষম্যমূলক নতজানু নীতি ও ক্ষমতার মোহে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ বিশেষভাবে বিপন্ন হচ্ছে। যে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের স্বপ্ন আমাদের পূর্বপুরুষ দেখেছিলেন, যার জন্য সংগ্রাম করেছিলেন, সেই রাষ্ট্র আমরা পাইনি। তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ এখানে মানুষে মানুষে বৈষম্য রয়েছে। ধনী-দরিদ্র বৈষম্যই প্রধান, সেই সঙ্গে নারী-পুরুষের বৈষম্যও স্পষ্ট এবং সংখ্যাগুরু ও সংখ্যালঘুর মধ্যকার পুরনো বৈষম্য শেষ হয়ে যায়নি।

তাই রাষ্ট্রকে গণতান্ত্রিক করা চাই। শ্রেণি-ধর্ম-নারী-পুরুষ-জাতিসত্তা-নির্বিশেষে সব মানুষের সমান অধিকার প্রতিষ্ঠা করা দরকার। তা না হলে শোষণ, লুণ্ঠন, সাম্প্রদায়িকতা, জাতিসত্তার নিপীড়নের ভাইরাসের হাত থেকে এই বাংলাদেশ মুক্ত করা সম্ভব হবে না। যত উন্নয়ন বা প্রবৃদ্ধির কথাই বলা হোক না কেন, সাম্প্রদায়িক শক্তির বীজে বেড়ে ওঠা জঙ্গিবাদের থাবায় সবই ভেস্তে যাবে এবং মনে রাখা দরকার তাদের চাপাতির কোপের রেঞ্জের বাইরে কোন প্রগতিশীলই নয়। টার্গেট যেন আমরা সবাই, সব ধর্মের মানুষ। এই সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে বাংলার সংস্কৃতি ও সম্প্রীতিই প্রতিরোধ গড়তে পারে। আর সেই সম্প্রীতির বজায় রাখার যুদ্ধে একমাত্র উৎস হতে পারে জাতির পিতার আজীবন সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে লড়াই সংগ্রামের ইতিহাস ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। বাঙালি জাগরণের মহাজাদুকর জাতির পিতার আদর্শ, তাঁর দর্শন চর্চা করতে পারলে তাঁর স্বপ্নের সত্যিকারের সোনার বাংলা গড়তে বেশি সময় লাগবে না ।

লেখক: সম্পাদক, ডেইলি জাগরণ ডট কম, সংগঠক: গণজাগরণ মঞ্চ