মুসলিম দেশের আমেরিকা ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা বাতিলে আইন প্রস্তাব পাস

101

বেশ কিছু মুসলিমপ্রধান দেশ থেকে আমেরিকা ভ্রমণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞার নির্দেশনা বাতিলের দাবিতে মার্কিন কংগ্রেসে একটি আইন প্রস্তাব পাস হয়েছে। ডেমোক্র্যাট-নিয়ন্ত্রিত কংগ্রেসে ২২ জুলাই ২৩৩-১৮৩ ভোটে এই আইন প্রস্তাব পাস হয়। যদিও রিপাবলিকান-নিয়ন্ত্রিত সিনেটে আইন প্রস্তাবটি পাস হবে না বলে আশঙ্কা রয়েছে।

ক্যালিফোর্নিয়া থেকে নির্বাচিত কংগ্রেসওমেন জুডি চাউ উত্থাপিত ‘নো ব্যান অ্যাক্ট’ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশে আমেরিকা ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা এবং অভিবাসনের ক্ষেত্রে ধর্মীয় বিদ্বেষের অবসানের লক্ষ্যে প্রণীত হয়েছে। আইন প্রস্তাবে বলা হয়েছে, হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগ এমন কোনো নিষেধাজ্ঞা আরোপের আগে কংগ্রেসের সঙ্গে আলোচনা করতে হবে। যদি না করা হয়, তাহলে এমন আদেশ সঙ্গে সঙ্গেই অকার্যকর বিবেচিত হবে। কংগ্রেসের অনুমোদন ছাড়া ব্যক্তিবিশেষের ওপর আরোপিত এমন নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে ফেডারেল আদালতে মামলা করার বিধান রাখা হয়েছে এ আইন প্রস্তাবে।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পরই ২০১৭ সালে এমন একটি ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার নির্বাহী আদেশ জারি করেন। তাঁর এ-সংক্রান্ত প্রথম নির্বাহী আদেশে সিরিয়া, ইরান, ইরাক, সুদান, লিবিয়া, ইয়েমেন ও সুদানের নাগরিকদের ওপর আমেরিকায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এসব দেশ মুসলিমপ্রধান দেশ হওয়ায় ট্রাম্পের বিপক্ষে মুসিলম বিদ্বেষের অভিযোগ ওঠে।

রিপাবলিকানদের পক্ষ থেকে এমন আইন প্রস্তাবের জন্য সময় নষ্ট করে প্রেসিডেন্টের জন্য সরকার পরিচালনা সমস্যাসংকুল করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। যখন প্রেসিডেন্ট দেশের মানুষের নিরাপত্তার কথা ভাবছেন, জঙ্গিবাদ বা মহামারি থেকে দেশের মানুষকে রক্ষা করার চেষ্টা করছেন, তখন এমন আইন প্রস্তাব তাঁর প্রয়াসকে বাধাগ্রস্ত করবে বলে তাঁরা বলছেন।

ডেমোক্র্যাট দলের সম্ভাব্য প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন এক দিন আগে এক মুসলিম সমাবেশে বলেছেন, আমেরিকার মুসলমানেরাই প্রথম ডোনাল্ড ট্রাম্পের অবজ্ঞার আঘাতটি টের পেয়েছেন। কৃষ্ণাঙ্গ এবং বাদামি লোকজন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মুসলমান দেশ থেকে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমেই তা টের পেয়েছেন বলে জো বাইডেন তাঁর বক্তব্যে উল্লেখ করেন।