করোনায় এক দিনে বিশ্বে সর্বোচ্চ আক্রান্ত

87

বিশ্বজুড়ে করোনার তাণ্ডব চলছেই। বিশ্বে এক দিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের নতুন রেকর্ড হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, গেল ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে দুই লাখ ৯৪ হাজারের বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। যা বিশ্বে এক দিনে সর্বোচ্চ সংক্রমণের রেকর্ড। এ নিয়ে বিশ্বজুড়ে ভাইরাসটিতে সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা দুই কোটি ১৬ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যে সাত লাখ ৬৯ হাজার মানুষ করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন।

বাংলাদেশ সময় রোববার রাত ৯টা ২০ পর্যন্ত ওয়ার্ল্ডওমিটারসের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন দুই কোটি ১৬ লাখ ৮২ হাজার ২ জন।

মারা গেছেন সাত লাখ ৭০ হাজার ৯৪ জন। অবস্থা আশঙ্কাজনক ৬৪ হাজার ৪৯২ জনের। সুস্থ হয়েছেন এক কোটি ৪৩ লাখ ৮৭ হাজার ২৩০ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ৯৪ হাজার ২৩৭, মৃত্যু হয়েছে পাঁচ হাজার ৪১০ জনের।

বিশ্ব তালিকায় শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৩ হাজার ৫২৩ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। একই সময়ে মারা গেছেন এক হাজার ৭১ জন।

এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্ত ৫৫ লাখ ৩১ হাজার ৭৪৭ জন, মারা গেছেন এক লাখ ৭২ হাজার ২৫৬ জন।

তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩৮ হাজার ৮৮৮ জন, মৃত্যু হয়েছে ৭২৬ জনের। এতে দেশটিতে মোট রোগীর সংখ্যা ৩৩ লাখ ১৭ হাজার ৪৭০ জন, মৃত্যু হয়েছে এক লাখ সাত হাজার ৮৫৭ জনের।

এমন পরিস্থিতিতেও লকডাউন শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা সরকার। আজ সোমবার থেকে দেশটিতে লকডাউন শিথিল কার্যকর হবে।

করোনা সংক্রমণের সংখ্যা চূড়ায় পৌঁছে যাওয়ায় এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা।

বিশ্বে তৃতীয় স্থানে থাকা ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৩ হাজার ৮১৬ জন। একই সময়ে মারা গেছেন ৯৫০ জন।

দেশটিতে মোট রোগীর সংখ্যা ২৬ লাখ ১৯১ জন, মারা গেছেন ৫০ হাজার ২০৫ জন। চতুর্থ স্থানে রাশিয়ায় মোট রোগীর সংখ্যা ৯ লাখ ২২ হাজার ৫৯৯ জন, মারা গেছেন ১৫ হাজার ৬৮৫ জন।

পঞ্চম স্থানে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকায় মোট আক্রান্ত পাঁচ লাখ ৮৩ হাজার ৬৯৮ জন, মৃত্যু হয়েছে ১১ হাজার ৬৭৭ জনের।

ষষ্ঠ স্থানে পেরুতে মোট রোগী পাঁচ লাখ ২৫ হাজার ৬৬১ জন, মৃত্যু হয়েছে ২৬ হাজার ৭৫ জনের।

সপ্তম স্থানে থাকা মেক্সিকোতে মোট আক্রান্ত পাঁচ লাখ ১৭ হাজার ৭৩৩ জন, মৃত্যু হয়েছে ৫৬ হাজার ৫৪৩ জনের।