জাতিসংঘ ভাষণে করোনার জন্য চীনকে দায়ি করেছেন ট্রাম্প

138

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প মঙ্গলবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেয়া ভাষণে চীনকে তার কর্মকান্ডের জন্যে জবাবদিহি করতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। হোয়াইট হাউজে আগেই রেকর্ড করা এই ভাষণে ট্রাম্প করোনাভাইরাসের কারণে কভিড ১৯ রোগের বিশ্বব্যাপী সংক্রমণের জন্য চীন সরকারকে অভিযুক্ত করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প মঙ্গলবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেয়া ভাষণে চীনকে তার কর্মকান্ডের জন্যে জবাবদিহি করতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। হোয়াইট হাউজে আগেই রেকর্ড করা এই ভাষণে ট্রাম্প করোনাভাইরাসের কারণে কভিড ১৯ রোগের বিশ্বব্যাপী সংক্রমণের জন্য চীন সরকারকে অভিযুক্ত করেছেন। বিশ্ব জুড়ে এই রোগে এখন তিন কোটি দশ লক্ষ লোক সংক্রমিত হয়েছেন এবং মারা গেছেন নয় লক্ষ পঁয়ষট্টি হাজার মানুষ।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট তাঁর ভাষণে বলেন এই জীবাণু সংক্রমণের প্রথম দিকেই চীন অভ্যন্তরীণ চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে কিন্তু চীন থেকে ফ্লাইট চলাচল অব্যাহত রাখে এবং এতে বিশ্বকে সংক্রমিত হতে দেয়। তিনি আরও বলেন, “ চীনা সরকার এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা , যারা কার্যত চীনের নিয়ন্ত্রেণই রয়েছে মিথ্যে জানিয়েছিল যে মানুষ থেকে মানুষের দেহে এই রোগ সংক্রমণের কোন প্রমাণ নেই”।

ট্রাম্পের এই ভাষণ ছিল জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দেয়া যে কোন ভাষণের চাইতে চীনের বিরুদ্ধে অস্বাভাবিক রকমের সমালোচনা। তাঁর ভাষণে প্রেসিডেন্ট চীনের প্রতি যে কড়া মনোভাব পোষণ করেছেন সে সম্পর্কে জানতে চাইলে হোয়াইট হাউজের প্রেস সচিব কেলেই ম্যাকএনানী প্রেস ব্রিফিং এর সময়ে বলেন, চীন যা করেছে,তা অমার্জনীয়।

ওদিকে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের জন্য বেইজিং থেকে রেকর্ড করা মন্তব্যে প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং বলেন, এই মহামারিকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহারের যে কোন প্রচেষ্টাকে প্রত্যাখ্যান করা উচিত্ এবং আন্তর্জাতিক ভাবে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে নেতৃত্বের ভূমিকা দেয়া উচিত্। ট্রাম্প তাঁর ভাষণে দৃঢ়তার সঙ্গেই বলেন যে যুক্তরাষ্ট্র টিকা বিতরণ শুরু করবে এবং এই জীবাণুকে পরাস্ত করবে। তিনি তাঁর ভাষণে সাম্প্রতিক সময়ে তাঁর কয়েকটি শান্তি উদ্যোগের কথাও তুলে ধরেন।করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বের নেতৃবৃন্দ এবারকার সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে নিউ ইয়র্কে আসতে পারেননি।