১২৫ ইলেক্টোরাল ভোটেই ট্রাম্প-বাইডেনের ভাগ্য নির্ধারণ

160

একদিন পরেই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের আলোচিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। দেশটির ৫০টি অঙ্গরাজ্যের ৪২টিতে রিপাবলিকান বা ডেমোক্র্যাট প্রার্থী সুস্পষ্টভাবে এগিয়ে রয়েছেন। তবে আটটি রাজ্যের ভোটাররা কোনো প্রার্থীর দিকেই ঝুলে নেই। এসব রাজ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। এ রাজ্যগুলোর দিকেই তাকিয়ে আছেন সবাই।

১২৫টি ইলেক্টোরাল ভোটের অধিকারী আটটি রাজ্যই মার্কিন প্রেসিডেন্টের ভাগ্য নির্ধারণ করে থাকে। আর এ কারণেই এ রাজ্যগুলোকে সুইং স্টেট বা দোদুল্যমান রাজ্য বলা হয়। রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের ভাগ্যও রাজ্যগুলোর ওপরই নির্ভর করছে।

সর্বশেষ জনমত জরিপ অনুযায়ী বাইডেন ৫২.২ শতাংশ এবং প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ৪৩.৪ শতাংশ জনসমর্থন পেতে যাচ্ছেন। প্রায় ৯ শতাংশ জনসমর্থন নিয়ে এগিয়ে থাকা বাইডেন বেশিরভাগ সুইং স্টেটে এগিয়ে আছেন। তবে ব্যবধান খুবই সামান্য। জনমত জরিপে বাকি ৪২ রাজ্যে বাইডেন ও ট্রাম্প পরস্পর থেকে স্পষ্ট ব্যবধানে এগিয়ে থাকলেও দোদুল্যমান রাজ্যে তাদের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। এসব অঙ্গরাজ্যের ভোটের ফলাফল নির্ধারণ করবে তাদের জয়-পরাজয়।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ওহাইও অঙ্গরাজ্যকে সৌভাগ্যের প্রতীক বলা হয়। এ অঙ্গরাজ্যে হারলে পুরো নির্বাচনে হার আর জিতলেই নিশ্চিত হোয়াইট হাউসের টিকিট। এর আগের ১৩টি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এর ব্যতিক্রম হয়নি। একেকবার একেক দলকে সমর্থন দেয়ায় দোদুল্যমান বা সুইং স্টেট হিসেবে পরিচিতি পায় ওহাইও।

ওহাইও ছাড়াও আরও সাতটি রাজ্যকে সুইং স্টেট বিবেচনা করা হয়। ইলেক্টোরাল ভোটের জটিল সমীকরণে মূল ব্যবধান গড়ে দেবে ফ্লোরিডা, জর্জিয়া, নর্থ ক্যারোলিনা, পেনসিলভানিয়া, উইসকনসিন, অ্যারিজোনা ও আইওয়া। স্বাভাবিকভাবেই এ আট রাজ্যের ১২৫ ইলেক্টোরাল ভোটের দিকে এখন সবার রয়েছে।

রোববার ও সোমবার দোদুল্যমান আটটি রাজ্য- ফ্লোরিডা, পেনসিলভানিয়া, মিশিগান, নর্থ ক্যারোলিনা, জর্জিয়া, অ্যারিজোনা, উইসকনসিন ও মিনেসোটায় প্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্রার্থী ট্রাম্প ও বাইডেন জোর প্রচারণা চালান। জরিপে রাজ্যগুলোয় বাইডেন এগিয়ে রয়েছেন। যদিও এ জরিপে আস্থা নেই অনেকের। জরিপে এগিয়ে থাকলেও ডেমোক্র্যাট শিবিরে শঙ্কা কাটছে না।