পম্পেই নগরীতে লাভার নিচে ঢাকা পড়া দুইজনের দেহাবশেষ

133

এক সময় ব্যস্ত নগরী ছিল প্রাচীন ইতালির পম্পেই নগরী। দুই হাজার বছর আগে আগ্নেয়গিরির অগ্নিপাতে এ নগরী লাভার নিচে চাপা পড়ে। ফলে জীবন্ত কবর হয়েছিল পম্পেইর।প্রত্নতাত্ত্বিকরা এই শহরটি থেকে দুই ব্যক্তির দেহাবশেষ উদ্ধার করেছেন। তাদের ধারণা একজন উচ্চ শ্রেণির অপরজন তার দাস।

৭৯ খ্রিষ্টাব্দে ভিসুভিয়াস পর্বতের আগ্নেয়গিরির দুই দিনব্যাপী সর্বনাশা অগ্ন্যুৎপাতে পম্পেই নগরী সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। ৬০ ফুট উঁচু ছাই এবং ঝামা পাথথের নিচে শহরটি চাপা পড়ে যায়।

বিবিসি জানিয়েছে, প্রত্নতাত্ত্বিকরা বহু বছর ধরেই এই শহরে গবেষণা চালিয়ে আসছেন। প্রাচীন এই শহরের উপকণ্ঠে খনন কাজ চলার সময় এমাসেই ওই দুটো দেহাবশেষের সন্ধান পাওয়া যায়।

শনিবার ইতালির সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, প্রায় দুই হাজার বছর আগে আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতে পুড়ে মরা দু’জন ব্যক্তির দেহাবশেষ আবিষ্কার করেছে তারা।

প্রত্নতাত্ত্বিকেরা জানান, ওই দুই ব্যক্তির একজন সম্ভবত উচ্চ শ্রেণির মানুষ। ধারণা করা হচ্ছে, তার বয়স ৩০ থেকে ৪০ বয়সের মধ্যে। তার ঘাড়ের নিচে পশমের তৈরি কাপড়ের চিহ্ন পাওয়া গেছে। অপরজন ব্যক্তির বয়স ছিল ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। তার পরনে পোশাক আশাক দেখে মনে হচ্ছে তিনি ছিলেন প্রথম ব্যক্তির দাস।