উইসকনসিনে পুনর্গণনায় উল্টো বাইডেনের ভোট বাড়ল

139

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবার কী বলবেন। তাঁর নির্বাচনী শিবিরের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে উইসকনসিনের সবচেয়ে বড় কাউন্টিতে ভোট পুনর্গণনা হয়েছিল। ২৭ নভেম্বর (শুক্রবার) শেষ হওয়া ভোট পুনর্গনায় উল্টো ডেমোক্রেটিক দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেনের ভোট বেড়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, উইসকনসিনের মিলাউকি কাউন্টিতে মোট ৪ লাখ ৬০ হাজার ভোট পুনর্গণনা হয়েছিল। এতে বাইডেনের ভোট আর ও বেড়েছে। পুনর্গণনায় বাইডেনের আগের ভোটের সঙ্গে ২৫৭ ভোট এবং ট্রাম্পের ১২৫ ভোট যোগ হয়েছে। ফলে নতুন যোগ হওয়া ভোটে বাইডেন প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাম্পের চেয়ে আরও নিট ১৩২ ভোট বেশি পেয়েছেন।

পুনর্গণনায় বাইডেনের আগের ভোটের সঙ্গে ২৫৭ ভোট এবং ট্রাম্পের ১২৫ ভোট যোগ হয়েছে। ফলে নতুন যোগ হওয়া ভোটে বাইডেন প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাম্পের চেয়ে আরও নিট ১৩২ ভোট বেশি পেয়েছেন
বাইডেনের কাছে এই রাজ্যে ২০ হাজারের বেশি ভোটের ব্যবধানে হারের পর ট্রাম্প শিবির উইসকনসিনের ঘনবসতিপূর্ণ ও ডেমোক্র্যাট সমর্থন বেশি রয়েছে এমন কাউন্টিতে ভোট পুনর্গণনার দাবি তোলে। দুই কাউন্টির ভোট পুনর্গণনায় ট্রাম্প শিবিরের প্রায় ৩০ লাখ মার্কিন ডলার ব্যয় হচ্ছে। ডেন কাউন্টিতে কাল রোববার ভোট পুনর্গণনা শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

৩ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জো বাইডেন ৩০৬ ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়ে জয়ী হন। অন্যদিকে ট্রাম্প পেয়েছেন ২৩২ ইলেকটোরাল কলেজ। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হতে ২৭০টির বেশি ইলেকটোরাল ভোটের প্রয়োজন হয়। ইলেকটোরাল ভোটে জয়ের পাশাপাশি বাইডেন তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে ৬০ লাভের বেশি ভোট পেয়েছেন।

ভোট পুনর্গণনা শেষে মিলাউকি কাউন্টির সচিব জর্জ ক্রিস্টেনসন বলেন, ‘আমরা যা জানি, ভোট পনর্গণনায় কেবল সেটিই উঠে এসেছে। মিলাউকি কাউন্টির সুষ্ঠু, স্বচ্ছ, নিরপেক্ষ ও নির্ভুল হয়েছে।’

ট্রাম্প শিবির এখনো উইসকনসিনের নির্বাচনী ফলাফলের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই চালিয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে সময় দ্রুত ফুরিয়ে যাচ্ছে। আগামী মঙ্গলবার এই রাজ্য নির্বাচনী ফল অনুমোদন (সার্টিফাই) করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

একই দিন পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যে আরেকটি আদালতে ট্রাম্পের মামলা খারিজ হয়েছে। তাঁর আইনজীবী রুডি জুলিয়ানি পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের ভোটের ফলাফল বাতিল চেয়ে আদালতে মামলা করেছিলেন। পেনসিলভানিয়া ফেডারেল আদালত ভোটের ফলাফল প্রত্যয়ন করার ওপর আস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করে ২৭ নভেম্বর (শুক্রবার) মামলার শুনানি ঠিক করেছিলেন। অবশ্য এর আগেই রাজ্যের ভোটের ফলাফল প্রত্যয়ন হয়ে গেছে।

শুক্রবার আদালতের রায়ে বিচারক স্টিফেনোস বিবাস বলেছেন, এ মামলায় সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ এবং প্রমাণ নেই। মামলা খারিজ হয়ে যাওয়ার পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের আইনজীবীরা জানিয়েছেন, তাঁরা এ নিয়ে আপিল আদালতে যাবেন। সুপ্রিম কোর্ট অভিমুখে ট্রাম্প আইনজীবীদের নিষ্ফল যাত্রা অব্যাহত রয়েছে।

ট্রাম্পের আইনজীবী দলের অন্যতম জেনা এলিস এক টুইটবার্তায় বলেন, পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের বিচার বিভাগ রাজনৈতিক কারণে রাজ্যের ব্যাপক ভোট জালিয়াতি আড়াল করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে এখন বিষয়টি প্রমাণের জন্য তাঁরা সুযোগ পাবেন বলে এমন রায়কে ধন্যবাদ জানান জেনা এলিস।