অবশেষে সরকারিভাবে জয়ী বাইডেন

130

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল গতকাল শুক্রবার প্রত্যয়ন করেছে ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্য কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে রাজ্যের ৫৫ ইলেকটোরাল কলেজকে ডেমোক্র্যাটপ্রার্থী জো বাইডেনের পক্ষে ভোট দিতে নিয়োগ দিয়েছে। ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যের ফলাফল প্রত্যয়নের মাধ্যমে বাইডেন সরকারিভাবে বিজয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ইলেকটোরাল কলেজ জিতে নিলেন।

নিউইয়র্ক ডেইলি নিউজের খবরে বলা হয়, ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যের সেক্রেটারি অব স্টেট অ্যালেক্স পাডিলা আনুষ্ঠানিকভাবে রাজ্যের নির্বাচনের ফলাফল অনুমোদন দেওয়ার পর বাইডেনকে ভোট দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এমন ইলেকটোরাল কলেজের সংখ্যা দাঁড়াল ২৭৯টিতে। নির্বাচনে জিততে ২৭০টি ইলেকটোরাল ভোটের প্রয়োজন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এসব পদক্ষেপ কেবল আনুষ্ঠানিকতা ছাড়া আর কিছু নয়। কিন্তু এবার নির্বাচন নিয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নানা গোপন পদক্ষেপ এবার নতুন মাত্রা যোগ করেছে। এখনো তিনি প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের বিজয়কে অস্বীকার করছেন এবং নির্বাচনের ফল পাল্টে দিতে অব্যাহতভাবে আইনি লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন।

ওহাইও স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক এডওয়ার্ড বি ফোলি বলেছেন, যদিও গত কয়েক সপ্তাহ ধরে নির্বাচনে বাইডেনের বিজয়ের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে, তবু ২৭০টির বেশি ইলেকটোরাল কলেজ জয়ের সরকারি ঘোষণা হোয়াইট হাউসে যাওয়ার পথে প্রথম ধাপ বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘এটি একটি আইন মাইলফলক এবং প্রথম মাইলফলক এবার যার গুরুত্ব রয়েছে। এর আগে যা কিছু ছিল, তা আজকের অবস্থানের ভিত্তি তৈরি করে দিয়েছে।’

গতকাল শুক্রবার ঘোষিত ইলেকটোরাল কলেজ অন্যান্য রাজ্যের ইলেকটোরাল কলেজদের সঙ্গে ১৪ ডিসেম্বর সভায় বসবেন। সেখানে তারা আনুষ্ঠানিকভাবে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট দেবেন। বেশির ভাগ রাজ্যে আইন করা আছে, স্ব স্ব রাজ্যে পপুলার ভোটে বিজয়ী প্রার্থীর পক্ষে ইলেকটোরাল কলেজরা ভোট দেবেন। আবার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ কোনো ইলেকটোরাল কলেজ বাইডেনের বিপক্ষে ভোট দেবেন, এখন পর্যন্ত এমন কোনো আভাসও পাওয়া যায়নি।

ইলেকটোরাল কলেজের ভোটের ফলাফল পাওয়ার পর সাধারণত কংগ্রেস ৬ জানুয়ারি তার অনুমোদন দিয়ে থাকে। কংগ্রেসের আইনপ্রণেতারা চাইলে ইলেকটোরাল ভোটের ফলাফল নিয়ে আপত্তি জানাতে পারেন। তবে এই পর্যায়ে কংগ্রেসে কিছু করে বাইডেনের জয় ঠেকানো অসম্ভব কাজ।

ডেমোক্র্যাট–নিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদ ও রিপাবলিকান-নিয়ন্ত্রিত সিনেট উভয়ই যেকোনো বিরোধ নিষ্পত্তিতে পৃথকভাবে ভোট দেবে। ইতিমধ্যে পেনসিলভানিয়া থেকে রিপাবলিকানরা প্রস্তাব দিয়েছেন যাতে ৭৫ জন রিপাবলিকান আইনপ্রণেতা স্বাক্ষর করেছেন। এতে রাজ্যের ইলেকটোরাল কলেজ ভোট বাইডেনের পক্ষে না দিতে এবং ভোট দেওয়া থেকে বিরত রাখতে কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। তবে রাজ্যের রিপাবলিকান সিনেটর প্যাট টুমি এর কিছুক্ষণ পরই ঘোষণা দেন, পেনসিলভানিয়ার ইলেকটোরাল কলেজদের বাইডেনের পক্ষে ভোট দিলে তিনি আপত্তি তুলবেন না।