ফ্রান্স সীমান্ত বন্ধ করার পরই জরুরি বৈঠক ডেকেছেন বরিস

225

করোনাভাইরাসের অত্যন্ত সংক্রামক একটি ধরন শনাক্ত হওয়ার পর জরুরি বৈঠক ডেকেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

আগামী ৪৮ ঘণ্টার জন্য যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ফ্রান্স তাদের সীমান্ত বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয়ার পরপরই এই বৈঠক ডাকা হয়েছে। খবর সিএনএনের।

রোববার থেকেই যুক্তরাজ্যের ওপর একের ওপর এক নিষেধাজ্ঞা আসতে শুরু করে। ফ্রান্স তাদের সীমান্ত বন্ধ রাখায় ইংল্যান্ডের উপকূলীয় শহর ডোভার থেকে কোনো লরি বা যাত্রীবাহী ফেরি ফ্রান্সের উদ্দেশে ছেড়ে যায়নি।

আগামী ৪৮ ঘণ্টা এ ধরনের পরিবহন বন্ধ থাকছে বলে জানানো হয়েছে।

ফ্রান্স বলছে, যুক্তরাজ্যে সম্প্রতি নতুন প্রজাতির করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর এই পদক্ষেপ গ্রহণ করার প্রয়োজন ছিল।

ইতোমধ্যেই নেদারল্যান্ডস, জার্মানি, ইতালি, বেলজিয়াম, আইরিশ প্রজাতন্ত্র, তুরস্ক এবং কানাডা যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল বাতিল করেছে। সুইজারল্যান্ডও এই তালিকায় রয়েছে।

অপর দিকে হংকং জানিয়েছে, সোমবার রাত থেকে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল বাতিল হচ্ছে।

রোববার মধ্যরাত থেকে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে বিমানের ফ্লাইট ও ট্রেন বন্ধ থাকবে বলে ঘোষণা দিয়েছে বেলজিয়াম।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী আলেক্সান্ডার ডে ক্রু রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে বলেন, পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আরও পদক্ষেপ নিতে হবে কিনা তা আমরা দেখব।’ অন্য দেশগুলো সীমিত সময়ের জন্য যুক্তরাজ্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলেও বেলজিয়াম আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা জারি রাখবে বলে জানানো হয়েছে।

অস্ট্রিয়াও যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ফ্লাইট বাতিলের পরিকল্পনা করছে বলে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

অপর দিকে স্পেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, তারা ইউরোপীয় ইউনিয়নভূক্ত দেশগুলোর সঙ্গে সমন্বয়ের ভিত্তিতে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ফ্লাইট বন্ধের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে চান। সুইডেন জানিয়েছে, যুক্তরাজ্য থেকে তাদের দেশে প্রবেশের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্ত নেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

রোমানিয়া, লিথুয়ানিয়া, লাটভিয়া, এস্তোনিয়া, বুলগেরিয়া ও চেক প্রজাতন্ত্রও যুক্তরাজ্যের ফ্লাইটের ওপর নিষেধাজ্ঞার পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে।

ব্রিটেনে শনাক্ত হওয়া করোনার নতুন প্রজাতিটি যে খুব বেশি প্রাণঘাতী বা ভ্যাকসিনের সঙ্গে ভিন্নভাবে প্রতিক্রিয়া দেখাবে তার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে এটা আরও ৭০ শতাংশ বেশি সংক্রামক বলে জানানো হয়েছে।

করোনার পুরনো প্রজাতির চেয়ে এটি অনেক দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে নতুন করে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রপ্রধানরা ব্রাসেলসে এক বৈঠকে অংশ নিতে যাচ্ছেন। এই সঙ্কটময় পরিস্থিতি কিভাবে সামাল দেয়া যায় সে বিষয়ে নিজেদের মধ্যে সমন্বিত প্রচেষ্টার বিষয়ে আলোচনা করবেন তারা।

গত ২৪ ঘণ্টায় যুক্তরাজ্যে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ৩৫ হাজার ৯২৮ জন। গত এক সপ্তাহের মধ্যে দৈনিক আক্রান্তের এই সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ।

দেশটিতে গত ২৮ দিনে আরও ৩২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট মারা গেছে ৬৭ হাজার ৪০১ জন।