সৌদিতে মিশন প্রধানের ক্ষমতার অপব্যবহার

296

বিশেষ প্রতিনিধি, সৌদীআরব থেকে: সৌদীআরবের জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটর জেনারেল ফয়সাল আহমেদের দূর্ণীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের কারণে দিশেহারা হয়ে পড়েছে লাখ লাখ সৌদী প্রবাসী। এই অবস্থায় সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে তারা। তার অত্যাচারে কনস্যুলেটের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা অসহায়ত্বের মাঝে চাকরী করছেন। পাসপোর্ট রিইস্যুর ক্ষেত্রেও তার স্বেচ্চাচারিতা বিপাকে পড়ছেন হাজারো সেবা প্রার্থী। তার বিরুদ্ধে সেবা প্রার্থীরা অভিযোগ করে কোন সুফল পাননি। এছাড়া সৌদী আরবের খামিস মোসায়েত শহরে গৃহপরিচারিকার ভিসায় আসা মিনারা খাতুনসহ আরো দু’জন বাংলাদেশি নারীর নিরাপত্তা চেয়ে চিঠি পাঠানো হলেও কোন উত্তর পাওয়া যায়নি। বলা হয়েছে মিনারা খাতুন নিখোঁজ। অথচ মিনারা খাতুনকে নিয়ে ফয়সাল আহমেদ রাত যাপন করেছেন সেখানকার মারকিউরি হোটেলে। এছাড়া একই গাড়ীতে দু’জনের যাতায়াতের বিষয়টিও প্রত্যক্ষ করেছেন অনেকে। ২০২০ সালের ৪ অক্টোবর মিনারা খাতুনকে খুঁজে বের করার জন্য কর্তৃপক্ষকে লিখিত আবেদনে জানানাে হলেও, কর্তৃপক্ষের টনক নড়েনি। মিনারা খাতুনকে কনস্যুলেটে চাকরী দেয়া হলেও, তাকে কাজ করতে দেয়া হয়নি বলে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। ২০২০ সালের ১৯ ডিসেম্বর জেদ্দার ওই হোটেল থেকে মিনার খাতুনকে ফয়সাল আহমেদের লোকজন তুলে নিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে কোন ধরণের কারণ ছাড়াই। সে থেকে মিনারা খাতুন জেলেই মানবেতর জীবনযাপন করছে। তাকে উদ্ধারের জোর দাবি জানিয়েছেন তার স্বজনরা।