আফগানিস্তানে বোমা হামলায় ৮ নিরাপত্তা কর্মী নিহত

136

আফগানিস্তানের প্রতিরক্ষা বাহিনীর ঘাঁটিতে বোমাভর্তি একটি গাড়ি বিস্ফোরণে আট নিরাপত্তা কর্মী নিহত হয়েছেন। গাড়িটি ঘাঁটির দিকে চালিয়ে নিয়ে গিয়ে আত্মঘাতী এ হামলা চালায়। তালেবান হামলার দায় স্বীকার করেছে।

অস্থিতিশীল প্রদেশ নাঙ্গারহারে শনিবার ভোর হওয়ার আগে এই হামলা চালানো হয়। এর আগে এই প্রদেশে সরকারি বাহিনীকে লক্ষ্য করে কয়েকটি হামলার দায় স্বীকার করেছিল তালেবান। ওয়াশিংটনের সঙ্গে চুক্তিতে সহিংসতা কমানো ও আল-কায়েদার সঙ্গে সম্পৃক্ততা ছিন্ন করাসহ যে একাধিক প্রতিশ্রুতি তালেবান দিয়েছিল, তা তারা মানছে না বলে পেন্টাগনের অভিযোগের দু’দিন পরেই এই হামলা চালালো তালেবান।

নাঙ্গারহারের গভর্নরের কার্যালয় জানায়, ঘাঁটিতে একটি হামভি গাড়ি নিয়ে হামলা চালানো হয় যাতে আটজন নিহত হন। নানগারাহর প্রাদেশিক পরিষদের উপপ্রধান আজমল ওমর হামলার ঘটনা নিশ্চিত করেছেন। তবে তিনি জানান, নিহতের সংখ্যা ১৫ এবং আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন। তালেবান এই হামলা চালিয়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ।

গভর্নরের কার্যালয় জানায়, নানগারাহ’র রাজধানী জালালাবাদে বিস্ফোরক-ভর্তি আরেকটি গাড়ি আটক করা হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে নানগারাহতে সশস্ত্র গোষ্ঠী আইএস একাধিকবার প্রাণঘাতী হামলা চালিয়েছে। এদিকে, শনিবার কাবুলে রাস্তার পাশে আরেকটি বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে। তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে তালেবান ও আফগান সরকার শান্তি আলোচনা শুরু করলেও দেশটিতে সহিংসতা বেড়েই চলেছে। এখন পর্যন্ত এই আলোচনা কোনো সফলতা অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে। ওয়াশিংটনের সঙ্গে তালেবান গত বছর যে চুক্তি করেছিল তার শর্ত তারা মানছে না বলে সম্প্রতি অভিযোগ তুলেছে বাইডেনের নেতৃত্বাধীন প্রশাসন। চুক্তির শর্ত ছিল, তালেবান মার্কিন সামরিক বাহিনীর ওপর হামলা বন্ধ করবে, সহিংসতা কমাবে ও আফগান সরকারের সঙ্গে শান্তি আলোচনায় বসবে। বিনিময়ে যুক্তরাষ্ট্র ২০২১ সালের মধ্যে ধীরে ধীরে আফগানিস্তান থেকে তাদের বাহিনী পুরোপুরি প্রত্যাহার করে নেবে।