যুক্তরাষ্ট্রে ‘গৃহযুদ্ধ’ শুরুর ইঙ্গিত

151

যুক্তরাষ্ট্রে ‘গৃহযুদ্ধ’ শুরু হওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। সম্প্রতি চরম ডানপন্থী সংগঠন ওথ কিপারসের এক নেতার ভিডিও বার্তা ও অ্যারিজোনা থেকে নির্বাচিত কংগ্রেস সদস্য পল গসারের বক্তব্যে এমন ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

ওথ কিপারসের অ্যারিজোনা চ্যাপ্টারের নেতা জিম অ্যারিয়ো এক ভিডিও বার্তায় বলেছেন, ইতিমধ্যে দেশে সংঘর্ষ শুরু হয়েছে। ওই ভিডিওচিত্রে জিম অ্যারিয়োকে কংগ্রেসম্যান পল গসারের সঙ্গে দেখা গেছে। পল গসারও কংগ্রেসে চরম ডানপন্থী সদস্যদের মধ্যে অন্যতম।

ভিডিও চিত্রে জিম অ্যারিয়ো বলেন, ‘আমেরিকা কি গৃহযুদ্ধের দিকে এগোচ্ছে?’ এমন প্রশ্নের জবাবে পল গসার বলেন, ‘আমরা তো যুদ্ধেই আছি, শুধু একে অপরকে গুলি করাটা এখনো শুরু করিনি।’

এই ভিডিও চিত্রটি প্রকাশ হওয়ার দুই মাসের মধ্যে গত ৬ জানুয়ারি ওয়াশিংটনের ক্যাপিটল হিলে সশস্ত্র হামলার ঘটনা ঘটে। এতে সারা দেশের চরমপন্থী রক্ষণশীলদের সঙ্গে ওথ কিপারস গ্রুপের সদস্যদেরও দেখা গেছে। এ ঘটনায় পল গসারসহ আরও কয়েকজন ডানপন্থী রিপাবলিকান দলের কংগ্রেসম্যানকে তদন্তের আওতায় আনা হয়েছে।
মার্কিন নির্বাচনে কারচুপির মাধ্যমে জো বাইডেনকে জিতিয়ে দেওয়া হয়েছে—ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই ভিত্তিহীন দাবির প্রতি কংগ্রেসের ১৫০ রিপাবলিকান সদস্য সমর্থন জানিয়েছিলেন। তাঁদের সঙ্গে পল গসারসহ আরও কয়েকজন কংগ্রেসম্যান ও চরমপন্থীদের গভীর সংযোগ রয়েছে। তাঁদের অনেকেই ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলের হামলায় উপস্থিত ছিলেন। তাঁদের চিহ্নিতও করা হয়েছে।

৬ জানুয়ারির সন্ত্রাসী হামলা ও জঙ্গি চরমপন্থীদের সঙ্গে যোগসাজশের প্রমাণ থাকায় কংগ্রেসম্যান পল গসার ছাড়াও আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে এফবিআইয়ের তদন্ত চলছে। তাঁরা হলেন—অ্যারিজোনার প্রতিনিধি অ্যান্ডি বিগস। তিনিও নির্বাচনের ফলাফল বদলে দেওয়ার প্রচেষ্টায় সক্রিয় ছিলেন; যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের কলোরাডো প্রতিনিধি লরেন বোয়বার্ট; জর্জিয়া চতুর্দশ কংগ্রেসনাল ডিস্ট্রিক্ট থেকে নির্বাচিত মার্জরি টেলর গ্রিন। গ্রিন ‘কিউঅ্যানন’ ষড়যন্ত্র তত্ত্বের প্রবক্তা। এমন ষড়যন্ত্রতত্ত্বে বিশ্বাসী এবং এর অনুসারী অনেককেই ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলের হামলায় অংশ নিতে দেখা গেছে; আরেকজন কংগ্রেসম্যান হলেন ফ্লোরিডার ম্যাট গেটজ। ‘প্রাউড বয়েজ’ নামের একটি চরমপন্থী দলের সঙ্গে তাঁর যোগসাজশের তথ্য পাওয়া গেছে।যুক্তরাষ্ট্র গত কয়েক দশক ধরে আল কায়েদা ও আইএসের মতো বাইরের জঙ্গিগোষ্ঠীর সঙ্গে লড়াই করছে। সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের চার বছরে যুক্তরাষ্ট্রে প্রকাশ্যেই চরমপন্থার উত্থান ঘটেছে। ২০২১ সালে এসে প্রথমবারের মতো মার্কিন হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগ দেশজুড়ে শ্বেতাঙ্গ উগ্রবাদীদের হামলার আশঙ্কা করে জনগণকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছে। সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, অভ্যন্তরীণ চরমপন্থীরা যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন এলাকায় হামলা চালানোর গোপন প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রে শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদের চরমপন্থী গোষ্ঠী গড়ে উঠেছে। ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলের হামলায় শ্বেতাঙ্গদের প্রকাশ্য সম্মিলিত উপস্থিতি দেখা গেছে। এ ঘটনার তদন্তে দেখা গেছে, মার্কিন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনী, এমনকি সেনাবাহিনীতেও তাঁদের অনুপ্রবেশের আলামত পাওয়া গেছে। তদন্তে চিহ্নিত লোকজনের মধ্যে সাবেক সেনা কর্মকর্তা, ফায়ার সার্ভিসের কর্মী, ফেডারেল কর্মচারী, রাজ্য সরকারের কর্মকর্তা ও বিচারকের ছেলেসহ সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ের লোকজনক রয়েছে। সূত্র : প্রথম আলো