নিষেধাজ্ঞায় পড়া দেশ থেকে আবার ভিসার আবেদন করা যাবে

167

সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সময় ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞায় থাকা মুসলিম প্রধান কয়েকটি দেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নাগরিকেরা আবার ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

ডোনাল্ড ট্রাম্প ১৩টি দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন। নিষেধাজ্ঞার আওতায় আসা অধিকাংশ দেশই মুসলিম প্রধান ছিল বলে তখন প্রতিবাদের ঝড় উঠেছিল। গত ২০ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ গ্রহণের দিনেই জো বাইডেন এক আদেশে ট্রাম্পের ওই নিষেধাজ্ঞা বাতিল করেছেন।

৮ মার্চ মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর জানিয়েছে, ওই সব দেশ থেকে যেসব আবেদনকারীর ভিসা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল, তাঁরা ভিসা প্রাপ্তির জন্য আবার আবেদন করতে পারবেন।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস জানান, গত ২০ জানুয়ারির আগে যাদের ভিসা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল, তাঁরা নতুন করে আবেদন করতে পারবেন। তবে তাঁদের আবেদনের সঙ্গে নতুন করে আবেদন ফি দিতে হবে। যাদের আবেদন ২০ জানুয়ারির পরে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে, তাঁদের নতুন করে আবেদনপত্র পূরণ বা ফি দিতে হবে না। তাঁরা কেবল পুনর্বিবেচনার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

ডিভি লটারি বিজয়ী লোকজনের যেসব ভিসা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল, নিষেধাজ্ঞা প্রাপ্ত দেশগুলোর সেসব ডিভি লটারি বিজয়ীদের ভিসাও এখন দেওয়া হচ্ছে বলে মুখপাত্র নেড প্রাইস জানিয়েছেন।

মার্কিন কংগ্রেসে প্রণীত আইনে যেসব দেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে কম অভিবাসন হয়েছে, সেসব দেশের লোকজনের মধ্যে ডিভি ভিসা এখনো চালু আছে। তবে কোটা পূরণ হওয়ার কারণে বাংলাদেশ থেকে ডিভি ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে আসার কর্মসূচি বেশ কয়েক বছর থেকে বন্ধ রয়েছে।

২০১৭ সালের ডিসেম্বরে আরোপিত নিষেধাজ্ঞার পর যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের জন্য নিষেধাজ্ঞাপ্রাপ্ত দেশ থেকে ৪০ হাজারের বেশি ভিসার আবেদন প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে বলে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর সূত্রে জানা গেছে। সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞা প্রাপ্ত দেশগুলো ছিল—মিয়ানমার, ইরিত্রিয়া, ইরান, কিরগিজস্তান, লিবিয়া, নাইজেরিয়া, উত্তর কোরিয়া, সোমালিয়া, সুদান, সিরিয়া, তানজানিয়া, ভেনেজুয়েলা ও ইয়েমেন।