মিয়ানমারে নিহতের সংখ্যা ৪৫৯ ছাড়িয়েছে

120

মিয়ানমারে সামরিক জান্তা সরকার ক্ষমতা দখল করার পর থেকে এখন পর্যন্ত দেশটিতে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে ৪৫৯ জন মানুষ নিহত হয়েছেন। আজ সোমবার (২৯ মার্চ) একটি মানবাধিকার সংগঠনের বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে বার্তা সংস্থা আনাদোলু।

রাজনৈতিক বন্দীদের জন্য সহায়তা সমিতির এক প্রতিবেদন অনুসারে, নিহতদের মধ্যে শিশু-নারী থেকে শুরু করে শিক্ষক-যুবকরাও আছে।

মানবাধিকার সংগঠনটি জানিয়েছে, গত ২৭ মার্চ পাইজিগি দাগুন জনপদে আগুন দিয়ে অন্তত ৬০টি বাড়িঘর ধ্বংস করে দিয়েছে জান্তা বাহিনী। স্থানীয়দের লক্ষ্য করে যখন গুলি চালানো হয় তখন আশপাশের বাসিন্দারা তাদের সাহায্য করতে এগিয়ে আসে। কিন্তু সেখানেও বাধা দেয় নিরাপত্তা বাহিনী।

পরদিন ২৮ মার্চ ২ হাজার ৫৫৯ জন আন্দোলনকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আগেরদিন মিয়ানমারের বাণিজ্যিক রাজধানী ইয়াঙ্গুনের থকেতা এলাকায় বিক্ষোভ করার সময় একজন বেসামরিক নাগরিক নিহত ও দুইজন আহত হন।

গত শনিবার ছিলো মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনী দিবস। সেদিন রাজধানী নেপিদোতে সেনা কুচকাওয়াজের পরপরই সেনা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে চলমান বিক্ষোভে চরম দমনপীড়ন চালানো হয়। একদিনের নিহত হয় ১১৪ জন বলে দাবি করেছে রয়টার্স। শুধু মান্দালয় শহরেই শিশুসহ অন্তত ৪০ জন ও ইয়াঙ্গুনে ২৭ জন নিহত হন। বিক্ষোভ চলাকালীন এদিনই সবচেয়ে রক্তাক্ত দিন পার করেছে মিয়ানমার।