অভিবাস পদ্ধতি পাল্টে দিতে চান জো বাইডেন

125

যুক্তরাষ্ট্রের পুরো অভিবাসন পদ্ধতি পাল্টে দিতে চান প্রেসিডেন্ট বাইডেন। অভিবাসীদের স্বর্গরাজ্য হিসেবে পরিচিত এ দেশে একটি মানবিক অভিবাসননীতি প্রণয়নের কাজ অনেকটাই এগিয়ে গেছে। রক্ষণশীলদের সঙ্গে সমঝোতা না হলে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতায় অভিবাসন সংস্কার আইন প্রণয়নের প্রস্তুতি নিচ্ছে বাইডেন প্রশাসন। এমন উদ্যোগ সফল হলে এ দেশে কয়েক লাখ মানুষের উৎকণ্ঠার অবসান হবে এবং দীর্ঘদিনের ভেঙে পড়া বাস্তবতা থেকে বেরিয়ে একটি শৃঙ্খলার অভিবাসন নিয়ম চালু হবে বলে আশাবাদ দেখা দিয়েছে।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন শপথ গ্রহণের পরই বলেছিলেন, একটি মানবিক ও কার্যকর অভিবাসন ব্যবস্থা তিনি গড়ে তুলবেন। দক্ষিণ সীমান্তে অভিবাসীদের ব্যাপক আগমনে সৃষ্ট সংকট সামাল দিতে সমন্বিত অভিবাসন আইন দ্রুত প্রণয়নে ডেমোক্রেটিক দলের মধ্যে এক ধরনের তাড়না দেখা যাচ্ছে।

গত কয়েক দশক ধরেই মার্কিন অভিবাসনে বিরাজ করছে চরম অরাজকতা। বিরাজমান অভিবাসন আইনের অব্যবস্থাপনার কারণে দেশটিতে চরম সংকট সৃষ্টি হয়েছে। সংকট নিয়ে যেমন রাজনীতি হচ্ছে, তেমনি পুরো দেশের অর্থনীতিতেও চাপ পড়েছে। সৃষ্টি হচ্ছে সামাজিক অস্থিরতা। দক্ষিণের স্থল সীমান্ত আদম পাচারের স্বর্গরাজ্য হয়ে উঠেছে। অপরাধীদের অনুপ্রবেশ ঘটছে, অভিবাসন আইনের অস্থিতিশীলতার খেসারত দিতে হচ্ছে প্রকৃত অভিবাসীদের।

অভিবাসনের স্বাভাবিক নিয়মে যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় আবেদনের ১৩ লাখ মামলা বছরের পর বছর ধরে পড়ে আছে অভিবাসন আদালতে। কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার এনফোর্সমেন্ট বিভাগের তথ্য অনুযায়ীম শুধু গত মার্চ মাসেই ১ লাখ ৭০ হাজার অভিবাসীর প্রবেশ ঘটেছে দক্ষিণের সীমান্ত দিয়ে। ২০০৬ সালের পর কোনো এক মাসে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে আসা সর্বোচ্চ সংখ্যক নথিপত্রহীন অভিবাসীর আগমন ঘটেছে গত মাসে।