আফগানিস্তানে সহিংসতা ক্রমশ বাড়ছে

154

দীর্ঘ দুই দশকের যুদ্ধ শেষে আফগানিস্তান থেকে সৈন্য সরাতে শুরু করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও সামরিক জোট ন্যাটো বাহিনী। অন্যদিকে, ওয়াশিংটনের এমন খবর প্রকাশের পর থেকে সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে দেশটিতে সহিংসতা ক্রমশ তীব্রতর হচ্ছে। এতে হতাহতদের অধিকাংশই আফগান সুরক্ষা বাহিনী ও বেসামরিক লোকজন। রবিবার (৯ মে) বার্তা সংস্থা এএনআইর প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে ইয়াহু নিউজ।

সেখানে বলা হয়েছে, শনিবার আফগান সুরক্ষা বাহিনীর কর্মকর্তারা জানান, তালেবানরা গত সপ্তাহে দেশের কমপক্ষে ছয়টি প্রদেশের কয়েকটি কৌশলগত অঞ্চল দখল করার চেষ্টা করেছিল। তবে তাদের এই চেষ্টা রোধ করে দিয়েছে আফগান বাহিনী।

আফগান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল ইয়াসিন জিয়া বলেন, বিগত ৪ মাসে কান্দাহার, হেলমান্দ, ফারাহ, হেরাত এবং বাগলান প্রদেশে আফগান সুরক্ষা বাহিনীর সঙ্গে বিভিন্ন বন্দুকযুদ্ধে অন্তত ১ হাজার তালেবান জঙ্গি নিহত এবং অসংখ্য আহত হয়েছেন।

এ ছাড়া বিগত দিনে গজনি শহর, খাজা ওমারি, জাগাটো, ওয়াঘাজ এবং খোগিয়ানী জেলায়ও ব্যাপক সহিংসতা হয়েছে। এদিকে, বগলুনের স্থানীয় কর্মকর্তারা জানান, তালেবানদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছেন শতাধিক মানুষ।

আফগানিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তালেবান নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলোতে তাদের সরাতে অভিযান চালানো হচ্ছে। মোট ৭টি প্রদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় অন্তত ২৫০ তালেবান জঙ্গি নিহত হয়েছে। বিগত চার মাসে এ সংখ্যাটা হাজারের অধিক। অবশ্য এ প্রতিবেদনকে অস্বীকার করেছে তালেবানরা।

ক্রমবর্ধমান সহিংসতার মধ্যেই গত শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ দূত জালময় খলিলজাদ বলেন, যদি শান্তি প্রক্রিয়ায় তালেবানরা রাজি না হয় তাহলে আফগান বাহিনীর প্রতি মার্কিনীদের সমর্থন অব্যাহত থাকবে।