৩ বছর পর প্রকাশ্যে পুতিন ‘প্রেমিকা’ অ্যালিনা কাবায়েভা

101

বিশ্বখ্যাত রাশিয়ান অ্যাথলেট অ্যালিনা কাবায়েভা। তাকে ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনকে ঘিরে নানা প্রেমের কথা। বলা হয়, প্রেমিকা অ্যালিনা কাবায়েভার কারণে সাবেক ফার্স্টলেডি লুদমিলার সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়েছে পুতিনের। ২০১৯ সালে অ্যালিনা কাবায়েভা যমজ সন্তান প্রসব করেছেন বলে খবর প্রচারিত হয়েছে। সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে সেই সন্তান প্রসব করানো হয়েছে। পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত এ খবরে কোন প্রতিক্রিয়া দেখাননি অ্যালিনা কাবায়েভা বা পুতিন। কেউই নিশ্চিত করেননি যে ওই খবর সত্য নাকি মিথ্যা। উপরন্তু অ্যালিনা কাবায়েভার সঙ্গে পুতিনের যে গোপন প্রেমের কথা প্রচলিত আছে, তাকে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে ক্রেমলিন থেকে।
সেই ২০১৯ সালে যমজ সন্তান প্রসবের খবরের প্রায় তিন বছর পর প্রথমবার প্রকাশ্যে একটি বিবৃতি দিয়েছেন অ্যালিনা কাবায়েভা। এই বিবৃতি রাশিয়ান অ্যাথলেটদের উদ্দেশে। তাতে তিনি বলেছেন, অলিম্পিকে তাদের জেতা উচিত দেশের জন্য। এ খবর দিয়েছে বৃটেনের একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকার অনলাইন সংস্করণ। এতে বলা হয়েছে, আড়াই বছরেরও বেশি সময় আগে সর্বশেষ প্রকাশ্যে দেখা গিয়েছিল অ্যালিনা কাবায়েভাকে। তারপর এবারই প্রথম তিনি বিরল বিবৃতি দিয়েছেন। অলিম্পিকে স্বর্ণপদক জয়ী এই জিমন্যাস্টের বয়স এখন ৩৮ বছর। বর্তমানে তিনি মস্কোতে একটি বড় মিডিয়ার মালিক। এ সপ্তাহে তিনি দেশের অলিম্পিক অ্যাথলেটদের উৎসাহিত করেছেন। বলেছেন, তাদেরকে প্রস্তুত হতে হবে এবং দেশের জন্য বিজয় আনতে হবে। ভক্তরা সম্প্রতি অভিযোগ করেন, তার জন্মদিনে নিরুদ্দেশ হয়ে যাওয়া অ্যালিনা কাবায়েভাকে তারা শুভেচ্ছা জানাতে পারছেন না। তাই রাশিয়ান জিমন্যাস্টিকস ফেডারেশনের মাধ্যমে অ্যালিনা কাবায়েভা ওই বিবৃতি দিয়েছেন।

অ্যালিনা কাবায়েভা ২০০৮ সালে যখন ক্রেমলিনপন্থি একজন এমপি, তখনই পুতিনের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে নানা কথা শোনা যায়। এরপর সাবেক ফার্স্টলেডি লুদমিলার সঙ্গে পুতিনের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এই বিচ্ছেদের কারণ অ্যালিনা কাবায়েভা বলে অনেক রিপোর্ট প্রকাশ হয়। সর্বশেষ ২০১৮ সালের অক্টোবরে প্রকাশ্যে এসেছিলেন অ্যালিনা কাবায়েভা। তখন তিনি সেন্ট পিটার্সবুর্গের একটি ইউনিভার্সিটি থেকে ডক্টরেট ডিগ্রি সম্পন্ন করছিলেন। এরপর ২০১৯ সালের মে মাসে খবর প্রকাশিত হয় যে, অ্যালিনা কাবায়েভা যমজ সন্তান প্রসব করেছেন মস্কোর এক হাসপাতালে। কিন্তু এ খবর সম্পর্কে তার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র বলেছেন, আমরা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করবো না।
জনপ্রিয় পত্রিকা মস্কোভস্কি কোমসোমোলেটস প্রথম এই খবর প্রকাশ করে তাদের ওয়েবসাইটে। কিন্তু পরক্ষণেই তা মুছে দেয়। ইন্টারনেট কেচ থেকেও তা মুছে ফেলা হয়। আরেকটি রিপোর্টে বলা হয়, সিজারিয়ান অপারেশনে তার সন্তান প্রসব হয়েছে। অ্যালিনা কাবায়েভা যে পত্রিকা এবং টিভি স্টেশনের মালিক সেই ন্যাশনাল মিডিয়া গ্রুপের কোনো মাধ্যমে তার যমজ সন্তান প্রসবের কোনো উল্লেখই করা হয়নি। ধারণা করা হয়, এই মিডিয়া থেকে তিনি বছরে ৮০ লাখ পাউন্ড আয় করেন। এ সপ্তাহে একটি বিরল রিপোর্ট প্রকাশ করে ট্যাবলয়েড এক্সপ্রেস গেজেটা। তাতে বলা হয় অ্যালিনা কাবায়েভা আক্ষরিক অর্থেই নিখোঁজ হয়ে গেছেন। যমজ সন্তান প্রসবের খবরের পর তার পক্ষ থেকে একটি শব্দও শোনা যায়নি, যেন তিনি নিখোঁজ হয়ে গেছেন। এমনকি তিনি কোন সাক্ষাৎকার দেননি। কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগ দেননি। এমনকি কোন টিভি প্রোগ্রামেও অংশ নেননি। তার ব্যক্তিগত জীবনে কি ঘটছে তা কেবল আন্দাজই করতে হয়। তবে এসব রিপোর্টে পুতিনের সঙ্গে তার সম্পর্কের বিষয় উল্লেখ করা হয়নি।

অ্যালিনা কাবায়েভা সর্বশেষ যে বিবৃতি দিয়েছেন, তাতে তিনি কোনো ছবি বা ক্লিপও যোগ করেননি। তিনি শুধু রাশিয়ান নারী জিমন্যাস্ট টিমের উদ্দেশে বলেছেন, আমরা প্রশিক্ষণ, প্রতিযোগিতা, টুর্নামেন্ট এবং অলিম্পিক গেমস নিয়ে আবার জীবনে ফিরেছি, যেমনটা আগে ছিলাম। এটা জেনে আমি খুবই আনন্দিত। আমি জানি আপনাদের প্রত্যেকেই কঠোর পরিশ্রম করেছেন। এখন আপনারা প্রস্তুত। দেশের জন্য বিজয় আনার জন্য প্রস্তুত। এই দেশবাসি আপনাদের সমর্থন করে। এই দীর্ঘ প্রতীক্ষিত এবং আনন্দঘন মুহূর্তে আপনাদের বলতে চাই আপনাদের প্রতি ভালবাসা রয়েছে। সমর্থন রয়েছে। আপনাদের জন্য আমার প্রার্থনা থাকবে। আমি আপনাদের প্রতিযোগিতা দেখবো। এ সময় তিনি জেনারেল আলেকজান্দার সুভোরোভের বিখ্যাত একটি উদ্ধৃতি তুলে ধরেন। বলেন, ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করো, বিজয় সেখান থেকে আসবে। ঈশ্বর হলেন আমাদের জেনারেল। ঈশ্বরই আমাদেরকে নেতৃত্ব দেবেন। অ্যালিনা কাবায়েভা বলেন, তিনি একটি যুদ্ধেও পরাজিত হননি।