ধর্মীয় উদ্দীপনায় পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত

43

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যে গত ২০ জুলাই (মঙ্গলবার) যুক্তরাষ্ট্রে উদযাপিত হয়েছে মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা। প্রায় দেড় বছর পর এবারের ঈদে মানুষের ঘরে ঘরে বয়ে যায় আনন্দের বন্যা। বাংলাদেশে পরিবার-পরিজন ও আত্মীয়স্বজন করোনার ঝুঁকিতে থাকায় প্রবাসী অনেক পরিবারে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা থাকলেও আনন্দের কমতি ছিল না।
করোনার ভয়ে গত তিনটি ঈদ মানুষ স্বস্তিতে উদযাপন করতে পারেননি। এমনকি ঈদে একে অন্যের সঙ্গে কোলাকুলিও করতে পারেননি। এবারের ঈদের নামাজের সময়ে তা ছিল না। খোলা ময়দান ও মসজিদে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মুসল্লিরা জামাতে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন। পরিবারের ছোট-বড় সব সদস্যকে নিয়ে অংশ নিয়েছেন। করোনার প্রকোপ কমে আসায় মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা না থাকলেও অধিকাংশ মানুষ মাস্ক পরে, ওজু করে ও জায়নামাজ নিয়ে ঈদের জামাতে গেছেন। ঈদের নামাজ শেষে অনেকেই কোরবানি দিতে চলে যান।
নিউইয়র্কে সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়, জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের পক্ষ থেকে, টমাস এডিসন হাইস্কুলের মাঠে। সকাল পৌণে ৯টায় একসঙ্গে প্রায় ১০ হাজার মুসল্লি এখানে জামাতে নামাজ আদায় করেন। জামাতে ইমামতি ও মোনাজাত পরিচালনা করেন জেএমসির খতিব ও পেশ ইমাম মাওলানা মির্জা আবু জাফর বেগ। খুৎবা পাঠ করেন ইমাম শামসে আলী।
এর আগে ঈদের জামাতে উপস্থিত হন নিউইয়র্ক সিটির ডেমোক্র্যাট প্রাইমারিতে বিজয়ী মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান ব্রুকলিন বরো প্রেসিডেন্ট এরিক অ্যাডামস, নিউইয়র্ক স্টেট সিনেটর জন ল্যু, অ্যাসেম্বলিম্যান ডেভিড ওয়েপ্রিন, কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি মেলিন্ডা কার্টজ, সিটি কাউন্সিলম্যান (ডিস্ট্রিক্ট-২৪) জেমস এফ জেনারো, নিউইয়র্ক সিটি প্রাইমারি নির্বাচনে কুইন্স কাউন্টির সিভিল কোর্টের বিচারক পদে বিজয়ী অ্যাটর্নি সোমা সাঈদ, কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট-প্রার্থী এলিজাবেথ ক্রাউলি, জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের প্রেসিডেন্ট ড. সিদ্দিকুর রহমান এবং বোর্ড অব ট্রাস্টির সদস্য আবু মোজাফ্ফর। পরিচালনা করেন জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের সাধারণ সম্পাদক মনজুর আহমদ চৌধুরী।
ঈদের জামাতে অংশ নেয়া দুবাইয়ের শীর্ষস্থানীয় বাংলাদেশি ব্যবসায়ী ও আল-হারমাইন গ্রুপ অব কোম্পানির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমানকে ডেমোক্র্যাটিক মেয়র-প্রার্থী এরিক অ্যাডামসের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের সাধারণ সম্পাদক মনজুর আহমদ চৌধুরী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঠিকানা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও সাবেক সংসদ সদস্য এম এম শাহীন।
এদিকে নিউইয়র্কের ম্যানহাটন, কুইন্স, ব্রঙ্কস, ব্রুকলিন, স্ট্যাটেন আইল্যান্ড, বাফেলোসহ বিভিন্ন স্থানে ঈদুল আজহার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া নিউজার্সি, কানেক্টিকাট, জর্জিয়া, টেক্সাস, মিশিগান, আটলান্টা, ভার্জিনিয়া, মেরিল্যান্ড, ক্যালিফোর্নিয়া, পেনসিলভানিয়াসহ যেসব স্টেটে বাংলাদেশিরা রয়েছেন, সেখানেও বিভিন্ন মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
এবার বেশিরভাগ মসজিদে সামাজিক দূরত্ববিধি তুলে নেয়া হয়। তাই কাতারে কাতারে কাছাকাছি দাঁড়িয়েই মানুষ নামাজ পড়েছেন। সবকিছুু স্বাভাবিক হওয়ায় বিভিন্ন মসজিদের ভেতরে একাধিক ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। মাঠ, পার্ক এবং স্ট্রিটের ওপর খোলা মাঠে নামাজ আদায় করা হয়েছে। কুইন্স, ব্রঙ্কস, ব্রুকলিন, ম্যানহাটান, বাফেলোসহ বিভিন্ন মসজিদে, মাঠে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। বিভিন্ন মসজিদে পুরুষদের পাশাপাশি নারী ও শিশুদের জন্যও নামাজের ব্যবস্থা ছিল। এবার বেশির ভাগ মসজিদের উদ্যোগে মাঠ, পার্ক, স্ট্রিটের ওপর ও মসজিদে বড় পরিসরে ঈদের নামাজের আয়োজন করা হয়। আবহাওয়া ভালো থাকায় অনেক মসজিদের সামনের স্ট্রিটে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। বেশির ভাগ মসিজেদ দুটি করে জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
এস্টোরিয়ার আল আমিন মসজিদের উদ্যোগে এস্টোরিয়ার ৩৬ ও ৩৭ অ্যাভিনিউয়ের মাঝখানে ৩৬ স্ট্রিটের ওপর সকাল আটটায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
নিউইয়র্ক ঈদগাহে ঈদুল আজহার প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে ছয়টায়। দ্বিতীয় ও শেষ জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে ১০টায়।
জ্যাকসন হাইটস মোহাম্মদী সেন্টারের উদ্যোগে ফেসবুক লাইভে নামাজের ব্যবস্থা করা হয়। এতে অনেক মানুষ অংশ নেন।
ইস্ট এলমহার্স্ট জামে মসজিদ অ্যান্ড মুসলিম সেন্টার ইন্কে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
আরাফা ইসলামিক সেন্টারের উদ্যোগে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মসজিদ আল-আরাফাতের উদ্যোগে জ্যামাইকার সুসান বি অ্যান্থনি স্কুলমাঠে সকাল সাড়ে আটটায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
ব্রঙ্কসের বায়তুল ইসলাম মসজিদ অ্যান্ড কমিউনিটি সেন্টার ইন্্ক-এ এবার ঈদের দুটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়। একটি হয় সকাল সাড়ে সাতটায়, অন্যটি সকাল সাড়ে আটটায়। মসজিদের ভেতরেই ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।
দারুস সালাম মসজিদ ইনক, জ্যামাইকায় ঈদুল আজহার চারটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাতটায়, দ্বিতীয়টি সকাল আটটায়, তৃতীয়টি সকাল নয়টায় এবং চতুর্থ জামাত সকাল ১০টায়। ১ম জামাতে ইমামতি করেন মসজিদের ইমাম ও খতিব কাজী ইমাম মাওলানা মোহাম্মদ আব্দুল মুকিত, ২য় জামাতে ইমামতি করেন হাফেজ মাওলানা আল আমীন আরাফাত, ৩য় জামাতে ইমামতি করেন হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ শাকের এবং ৪র্থ জামাতে ইমামতি করেন হাফেজ মাওলানা সাহাব উদ্দীন। স্বাগত বক্তৃতা রাখেন মসজিদের প্রেসিডন্ট হাফেজ মোশতাক চৌধুরী এবং সেক্রেটারি লন আহমেদ।
আমেরিকান মুসলিম সেন্টারের উদ্যোগে ঈদের তিনটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল সোয়া ছয়টায়। দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয় রুপসকিং পার্কে। এরপর তৃতীয় জামাত পার্কে অনুষ্ঠিত হয় সকাল ১০টায়।
স্বাস্থ্যবিধি মেনে দারুল উলম নিউইয়র্কে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
ব্রঙ্কসে ইসলামিক কালচারাল সেন্টার মসজিদ বিলালের উদ্যোগে রোজডেল অ্যাভিনিউতে ওয়াটসন গ্লেয়াসন প্লে গ্রাউন্ড পার্কে সকাল আটটায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
সিটি লেন ব্রুকলিনে অবস্থিত বায়তুল মামুর মসজিদ অ্যান্ড কমিউনিটি সেন্টারের পক্ষে মসজিদে ঈদের নামাজ হয়।
ব্রুকলিনের বায়তুস শরফ জামে মসজিদ অ্যান্ড ইসলামিক সেন্টারের উদ্যোগে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
ব্রঙ্কসে মসজিদ উল মুমিনিনের উদ্যোগে মসজিদের সামনে (সেন্ট পিটার ক্রস স্ট্রিট ক্লেডম্যান অ্যাভিনিউ) ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এই জামাতে বিপুলসংখ্যক মুসল্লি অংশ নেন।
বায়তুল জান্নাত জামে মসজিদ অ্যান্ড মুসলিম কমিউনিটি সেন্টারের উদ্যোগে ম্যাকডোনাল্ডের বিটুইন চার্চ অ্যাভিনিউতে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া নিউইয়র্কের আরো বিভিন্ন মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে- বাংলাবাজার জামে মসজিদ, ওজন পার্কের ফুলতলী ইসলামি সেন্টার, এস্টোরিয়া ইসলামিক সেন্টার, পার্কচেস্টার জামে মসজিদ, জ্যাকসন হাইটসের দারুল ফোরকান মসজিদ ও আন নূর মসজিদ, ব্রুকলিনের বাংলাদেশ মুসলিম সেন্টার, নিউকার্কের বেলাল মসজিদ ও ব্রুকলিন ইসলামি সেন্টার প্রভৃতি। এসব জামাতেও বিপুলসংখ্যক মানুষ ঈদের নামাজে শরিক হন।