হেলেনার বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা হচ্ছে: র‌্যাব

31

ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে মিথ্যাচার, অপপ্রচার ও বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়ে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা ও ব্যক্তিদের সম্মানহানি করার অপচেষ্টার অভিযোগে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। এছাড়া একই অভিযোগে তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

শুক্রবার (৩০ জুলাই) র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক ইমরান হোসাইন এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে বিকেল উত্তরা র‌্যাব সদর দপ্তরে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানানো হবে।

জানা গেছে, হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ অবৈধ বিদেশি মদ ও বিভিন্ন দেশের মুদ্রা জব্দ করা হয়। এ কারণে তার বিরুদ্ধে মাদক ও মানিলন্ডারিং আইনে মামলা দায়ের করা হবে। তবে এসব মামলায় হেলেনাকে একাই আসামি করা হবে, না অন্য কাউকেও আসামি করা হতে পারে সে বিষয়ে জানা যায়নি।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) রাত ৮টা থেকে হেলেনা জাহাঙ্গীরের গুলশানের বাসায় অভিযান শুরু চালায় র‌্যাব। সেই অভিযান চলে রাত সোয়া ১২টা পর্যন্ত। এরপর হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটক করে র‌্যাব সদস্যরা।

হেলেনা জাহাঙ্গীর আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ছিলেন। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত তার সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড সংগঠনের নীতিবহির্ভূত হওয়ায় আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্যপদ থেকে রোববার অব্যাহতি দিয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। বিজ্ঞপ্তিতে উপকমিটির সদস্যসচিব ও আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ সই করেন।

এতে বলা হয়, হেলেনা জাহাঙ্গীর আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপকমিটির সদস্য ছিলেন। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচারিত তার সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড সংগঠনের নীতিবহির্ভূত হওয়ায় আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপকমিটির সদস্যপদ হতে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।