যুক্তরাষ্ট্রের যেসব শর্ত মানলে ‘স্বীকৃতি পাবে’ আফগানিস্তানে নতুন সরকার

47

তালেবানরা আফগানিস্তানে নতুন সরকার গঠন করলে তাকে বিশ্ব সম্প্রদায় স্বীকৃতি দেবে কিনা তা নিয়ে চলছে জল্পনা। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র সাফ জানিয়ে দিল তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি পেতে হলে মানতে হবে শর্ত।

যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র নেড প্রাইস এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। খবর আলজাজিরার।

খবরে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তানে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক নতুন সরকার গঠনের আহ্বান জানায়। যে সরকার নারীদের অধিকার রক্ষাসহ মানবাধিকারের প্রতি সম্মান দেখাবে। এর পাশাপাশি তালেবানের আচরণের ওপর নির্ভর করবে ওয়াশিংটন কাবুলের নতুন প্রশাসনকে স্বীকৃতি দেবে কিনা।

সোমবার নেড প্রাইস বলেন, কাবুলের নিয়ন্ত্রণ তালেবান নেওয়ার পর থেকে যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্ররা আফগান পরিস্থিতি ‘গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ’ করবে।

‘ভবিষ্যৎ আফগান সরকার মৌলিক মানবাধিকার সমুন্নত রাখবে, সন্ত্রাসীদের মদদ দেবে না এবং মানবাধিকার রক্ষা করবে—এমন সরকারের সঙ্গে আমরা কাজ করতে পারব’, বলেন প্রাইস।

প্রাইস বলেন, ‘একটি বিষয় সত্য যে, যে সরকার এ কাজগুলো করবে না আমরা তাদের সমর্থন দেব না।’

স্টেট ডিপার্টমেন্টের ব্রিফিংয়ে প্রাইস বলেন, কাবুলে নতুন সরকার যেন মানবাধিকারের প্রতি সম্মান দেখায় তা যুক্তরাষ্ট্র কূটনৈতিক এবং অর্থনৈতিক পন্থায় নিশ্চিত করবে।
তালেবানের মুখপাত্র সোহাইল শাহীন যদিও ইতোমধ্যে মানবাধিকারের লঙ্ঘন না করার আশ্বাস দিচ্ছেন এবং নারী নির্যাতনের বিষয় অস্বীকার করেছেন।

প্রাইস বলেন, ওয়াশিংটন তালেবানের দেওয়া প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন চায়।

রোববার কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। এ সময় দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি। এখন দেশের দায়িত্ব বুঝে নেওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে ২০ বছর আগে ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় ক্ষমতা হারানো তালেবান।