নতুন করে সাড়ে ১০ কোটি টিকার চুক্তি করেছে বাংলাদেশ

49

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে নতুন করে সাড়ে ১০ কোটি টিকার চুক্তি হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেছেন, এ ছাড়া চীনের সঙ্গে আমরা সাড়ে ৭ কোটি টিকা আনার চুক্তি করেছি। আমরা দেশের প্রতিটি মানুষের জন্য টিকার ব্যবস্থা করব।

রোববার দুপুরের দিকে সদর উপজেলার গড়পাড়া শুভ্র সেন্টারে উপজেলা যুবলীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা জানান।

এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম, সহ-সভাপতি রমজান আলী, যুগ্ম সম্পাদক সুলতানুল আজম খান আপেল, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসরাফিল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আফসার উদ্দিন সরকার, সদর যুবলীগের সভাপতি খলিলুর রহমানসহ অনেকেই বক্তব্য দেন।

উল্লেখ্য, করোনা প্রতিরোধে প্রথম অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা পেতে বেক্সিমকো ফার্মার মাধ্যমে ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউটের সঙ্গে ক্রয়সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষর করে বাংলাদেশ। মোট ৩ কোটি টিকা আনার চুক্তি হয়েছিল। তার মধ্যে কিছু টিকা দেশে এসেছে। হঠাৎ ভারতে করোনা পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাওয়ায় টিকা রপ্তানি বন্ধ করে রেখেছে দেশটি।

পরে চীনের সিনোফার্মের সঙ্গে চুক্তিতে যায় বাংলাদেশ। সে অনুযায়ী টিকাও আসতে শুরু করেছে দেশে। একইসঙ্গে সিনোফার্ম উদ্ভাবিত টিকা বাংলাদেশে উৎপাদনের জন্যও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে বাংলাদেশ।

এ ছাড়া কোভ্যাক্সের আওতায় বাংলাদেশকে বিভিন্ন দেশ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার, ফাইজার, মডার্নার টিকা দিয়েছে। জাপান ইতোমধ্যে ৩০ লাখ টিকা অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা পাঠিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র থেকেও ফাইজার ও মডার্নার টিকা পেয়েছে বাংলাদেশ।