শিশুদেহে ফাইজারের টিকা ৯০.৭% কার্যকর

51

পাঁচ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের শরীরে ফাইজারের টিকা ৯০ দশমিক ৭ শতাংশ কাজ করেছে বলে দাবি করেছে মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি ফাইজার-বায়োএনটেক।

যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের (এফডিএ) কাছে টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের ফলাফল নিয়ে দেওয়া এক নথিতে কোম্পানিটি এই দাবি করে বলে শুক্রবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে।

ফাইজার-বায়োএনটেকের দাবি, তাদের টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগে প্লাসিবো (স্বান্ত্বনা ওষুধ) পাওয়া ১৬ জন শিশু কোভিড আক্রান্ত হয়। কিন্তু টিকা পাওয়া শিশুদের মধ্যে মাত্র তিন জন করোনা আক্রান্ত হয় বলে কোম্পানিটি জানায়।

এই টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগে দুই হাজার ২৬৮ জন শিশু অংশ নেয়। পরীক্ষায় যত সংখ্যক শিশুকে প্লাসিবো দেওয়া হয়েছিল, তার দ্বিগুণের বেশি শিশুকে কোভিড-১৯ টিকা দেওয়া হয়েছিল। সেই হিসেবে এই টিকার কার্যকারিতা ৯০ শতাংশের বেশি হয়।

অবশ্য পাঁচ থেকে ১১ বছর বয়সীদের নিয়ে ফাইজারের এই পরীক্ষায় ভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকারিতা পরিমাপ করা উদ্দেশ্য ছিল না। এই পরীক্ষার মূল্য উদ্দেশ্য ছিল শিশু ও বয়স্কদের শরীরে টিকার প্রভাবে অকার্যকর হওয়া অ্যান্টিবডির পরিমাণের তুলনা করা।

ওই ফলাফলের ভিত্তিতে গত মাসে ফাইজার ও বায়োএনটেক বলেছিল, তাদের কোভিড-১৯ টিকার ফলে শিশুদের মধ্যে ব্যাপক প্রতিরোধক্ষমতা তৈরি হয়।

৫ থেকে ১১ বছর বয়সীদের ১০ মাইক্রোগ্রামের দুই ডোজ টিকা দেওয়া হয়, যেখানে ১২ বছর ও তদূর্ধ্ব বয়সীদের এক তৃতীয়াংশ ডোজ দেওয়া হয়েছিল।